x 
Empty Product
Sunday, 09 June 2013 19:20

এবার আমের রাজধানী হবে বরেন্দ্র এলাকা

Written by 
Rate this item
(1 Vote)

নওগাঁয় এবার আম গাছে মুকুলে বিপুল সমারোহ দেখা দিয়েছে। গত বছরের তুলনায় দ্বিগুন মুকুল হওয়ায় বাম্পার ফলনের আশায় বুক বাঁধতে শুরু করেছেন  আম বাগন মালিকরা। জেলার বরেন্দ্র এলাকায় এবার আমের বাম্পার ফলন আশা

করছে চাষীরা । জেলা ১১টি উপজেলাসহ এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, আমের মুকুল পরিচর্যায় ব্যস্ত রয়েছেন আমচাষিরা। মুকুল ঝরারোধে গাছে-গাছে  কীটনাশক প্রয়োগ ছাড়া গাছের গোড়ায় সার ও পানি দিতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন চাষিরা।


নওগাঁ সদর উপজেলার বরুনকান্দি এলাকার আমচাষি মনোয়ার হোসেন জানান, এবারে গতবারের তুলনায় অনেক বেশি আমের মুকুল এসেছে এবং আমের বাম্পার ফলন হওয়ায় তিনি আশা বাদী। তিনি আরোও জানান, তাঁর আমের বাগানে গাছ  প্রায় দেড় হাজারের মতো। এসবের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ও সুস্বাদু আম রয়েছে যেমন-হাড়িভাঙ্গা, ল্যাংড়া, খিরষা ভোগ, গোপাল ভোগ, খিরসাপাত, দুধ আম, গোপালজাম,   সূর্যপুরি, ফজলি আমসহ আরোও একাধিক আম।

আর একারনেই আম গাছে মুকুল ধরার আগে দেশের বিভিন্ন এলাকার আম ব্যবসায়ীরা আসেন তার বাগানে এবং সেখান থেকে বড় বড় ব্যবসায়ীরা  জেলার আমচাষি ও বাগান মালিক দের আগ্রীম টাকা দিয়ে থাকেন।


সাপাহার উপজেলার আম চাষি আমিরুজ্জামান জানান, আমের বাণিজ্যিক শহর হিসেবে খ্যাত নওগাঁ। রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় যোগাযোগের সকল ব্যবস্থা আছে। দেশের বড় বড় ব্যবসায়ীদের আবস্থান সহ দৃষ্টি এখন নওগাঁর দিকে। ব্যবসায়ীক অবস্থা সুদৃঢ় হওযার কারণেই নওগাঁ দেশের অন্যতম বাণিজ্যিক শহর। কৃষিক্ষেত্রে অধিক সম্ভাবনা থাকার পরও এ আঞ্চলের আমচাষিরা সহজ উপায়ে কৃষি ঋন থেকে বঞ্চিত হওযায় সকল সম্ভবনাই মুখ থুবরে পড়ে রয়েছে। কৃষকরা অতিকষ্টে ঘাম ঝড়িয়ে ফল বা ফসল উৎপাদন করার পরই সেগুলো নিয়ে যাচ্ছেন বিভিন্ন অঞ্চলের বড় বড় ব্যবসায়ীরা। ব্যবসায়ীরা তা বিক্রি করে লাভবান হলেও কৃষকরা সব কিছু উৎপাদন করেও সম্ভবনার চুড়ায় পৌঁছতে পারছেন না। তিনি জানান, বর্তমান মৌসুমে নওগাঁ প্রতিটি আম গাছই মুকুলে মুকুলে ভরে গেছে এবং চাষিরা শত কষ্টে হলেও তা পরিচযায় ব্যস্ত রয়েছেন।
মুকুল ধরা থেকে আম পাকা পর্যন্ত যদি আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে   শুধুমাত্র নওগাঁ জেলায় প্রায় ৫০ থেকে ৬০ কোটি টাকার আম বিক্রির আশা করছেন বাগান মালিকরা জানান।


মহাদেবপুর উপজেলার বাজিদপুর গ্রামের আম বাগান মালিক হাসান আলী জানান, নওগাঁ জেলার সবচেয়ে সুস্বাদু আম হলো হাড়িভাঙ্গা, মিস্রভোগ, খিরসাপাত, ফজলি আমও সুর্যপুরি আম। এ সব আম রাজশাহী বিভাগের চাহিদা মিটিয়ে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে  যেমন ঢাকা, চট্রগ্রামে রপ্তানি করা হয়। এসব আম দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশে রফতানি করার জন্য  নওগাঁয় আম সংরক্ষনের জন্য একটি সরকারী কোল্ড স্টোরেজ নির্মানের দাবি জানান এলাকাবাসী। জেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক এস এম নুরুজ্জামান মন্ডল জানান, গাছে গাছে যেভাবে আমারে মুকুল দেখা যাচ্ছে  আবহাওযার পরিবর্তন না ঘটলে এবার এ জেলায় আমের ভাল ফলন হবে। আমের মুকুল ঝরে পড়ারোধে নিয়মিত গাছের গোড়ায় পানি দেওয়া সহ ছত্রাক রোধে যে কোন কীটনাশক ¯েপ্র করার আহবান জানিয়েছেন তিনি । এদিকে জেলা কৃষি বিভাগ আমচাষীদের করনীয় ব্যাপারে নিয়মিত লিফলেট বিতরন অব্যহত রেখেছে ।

Read 8285 times Last modified on Tuesday, 03 September 2013 04:44

Leave a comment

Make sure you enter the (*) required information where indicated. HTML code is not allowed.