x 
Empty Product
Thursday, 26 March 2020 08:20

করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তি পেতে আম গাছ থেকে ঝড়ছে মধু গুজব?

Written by 
Rate this item
(0 votes)

চাঁদপুর সহ সারাদেশব্যাপী আম গাছ থেকে মধু ঝড়ে পড়ার ঘটনা ঘটছে। গতকাল বৃহস্পতিবার ভোর রাত থেকে আম গাছের পাতা থেকে মধু ঝড়ে পড়ার ঘটনায় চাঁদপুর শহরে তোলপাড় চলছে। কেউ কেউ বলছে স্বপ্ন দেখানো হয়েছে আম গাছ থেকে ঝড়ে পড়া মধু সেবন করলে নাকি করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। এই গুজবে বিশ্বাস করে চাঁদপুর শহরে যততত্র আম গাছ থেকে ঝড়ে পড়া মধু ভেবে অনেকেই এ কশ সংগ্রহ করতে দেখা যায়।

ফজরের নামাজের পর থেকে বিভিন্ন পাড়া মহল্লায় যেসব আম গাছে মুকুল ছিল ওইসব গাছের নিচ থেকে মানুষ মধু সংগ্রহ করে। সরজমিনে শহরের আলিমপাড়া, পালপাড়া, রহমতপুর আবাসিক এলাকা, স্ট্যান্ড রোড, মমিন পাড়া, প্রফেসর পাড়া, নাজির পাড়া এলাকায়ও আম গাছ থেকে মধু ঝড়ছে ভেবে সাধারণ মানুষ তা সংগ্রহ করে। কয়েকজনের সাথে সকালে আলাপ করলে তারা জানান, আমরা শুনেছি স্বপ্নে নাকি আদেশ দিয়েছে আম গাছ থেকে ঝড়ে পড়া মধু সংগ্রহ করে খেলে করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। সেজন্য আমরা আম গাছ থেকে ঝড়ে পড়া মধু খেয়েছি। এমনিভাবে চাঁদপুর ছাড়াও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আম গাছ থেকে মধু ঝড়ছে এমন গুজব ছড়িয়ে পড়ায় সাধারণ মানুষের মধ্যে আতংকের সৃষ্টি হচ্ছে। আবার কেউ কেউ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে স্বপ্নে দেখানো হয়েছে এই মধু খেলে করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে এমন পোস্টও ছাড়া হয়েছ। এতে করে দেশবাসীর মধ্যে মারাত্মকভাবে গুজব ছড়িয়ে পড়ছে। এসব গুজব থেকে রক্ষা পেতে সচেতন মহল সকলকে অনুরোধ করছেন।
মূলত আম গাছ থেকে মধু ঝড়ার বিষয়টি নিয়ে কৃষিবিদদের ধারণা এক ধরনের পোকা নিস্ফ ও পুন্য বয়স্ক অবস্থায় আমগাছের সকল কচি অংশ থেকে রস খেয়ে বেঁচে থাকে। নিঃস্ফগুলো আমের মুকুল থেকে রস চুষে খায় এতে মুকুল শুকিয়ে বিবর্ণ হয়ে ঝড়ে পড়ে। একটি হপার পোকা দৈনিক তার দেহের ওজনের ২০ গুণ পরিমাণ রস চুষন করে খায়। এবং প্রয়োজনের অতিরিক্ত আঠালো রস মলদার দিয়ে বের করে দেয়। যা মধুর রস বা হানিডিও নামে পরিচিত। এ মধুরস মুকুলের ফুল ও গাছের পাতায় জমা হয়ে থাকে। যার উপর এক প্রকার ছত্রাক জন্মায়। এই পোকার আক্রমণে আমের উৎপাদন শতভাগ পর্যন্ত হ্রাস পেতে পারে। হপার পোকার আঠালো রস মলদ্বার থেকে বের করে দেওয়া এই মধু।

 

এই নিউজটির মুল লিখা আমাদের না। আমচাষী ভাইদের সুবিধার্তে এটি কপি করে আমাদের এখানে পোস্ট করা হয়েছে। এই নিউজটির সকল ক্রেডিট: https://www.crimeaction24.com

Read 2363 times Last modified on Thursday, 16 April 2020 06:54

Leave a comment

Make sure you enter the (*) required information where indicated. HTML code is not allowed.