x 
Empty Product
Monday, 16 December 2019 07:47

মানুষ অতীতকালে আম পাকাতে বরুন গাছের পাতা ব্যবহার করতেন

Written by 
Rate this item
(0 votes)

বাংলাদেশের মানুষ অতীতকালে আম পাকাতে এই গাছের পাতা ব্যবহার করতেন।

কিন্তু ফল পাকাতে ক্ষতিকারক ক্যালসিয়াম কার্বাইডের ব্যবহার বেড়ে যাওয়ায় এই গাছের কদর নেই।

বরুণ ফুলের বৈজ্ঞানিক নাম- Crateva religiosa। বরুণ Crateva গণের একটি ফুল গাছের নাম। এটি Capparaceae পরিবারের একটি ফুল। অন্যান্য নাম- প্বৈন্যা, শ্বেতপুষ্প, কুমারক, সাধুবৃক্ষ, শ্বেতদ্রুম, মহাকপিথা, মারুতাপহ, Spider Tree, Temple Plant, Garlic Pear। প্রচলিত ভাষায় বৈন্যা।

সাধারণত একটু নিচু জায়গায় জন্মে বা বলা যেতে পারে জলাভূমিপ্রিয় একটি গাছ হলো বরুণ। বসন্তকালে সাদা ও হালকা হলুদ ফুলে গাছ ভর্তি থাকে। পাতা বড় একটা দেখা যায়না তখন। দূর থেকে দেখতে অনেকটা আমেরিকার Dog wood-এর মত। ফুলের সে রকম কোন গন্ধ নেই। বসন্তকালে পুষ্পাবৃত গাছ সবার দৃষ্টি আকর্ষন করে থাকে।

ভাটি অঞ্চলে ধানকাটার সময় টেপী বোরোর গরম গরম ভাতের সঙ্গে বরুণের কচি ডগা ভর্তা-ভাজি করে গৃহস্থ নারীরা কামলাদের খেতে দেন। চৈত্রসংক্রান্তির দিনে হাওরের নারীরা সংগ্রহ করেন বরুণ ফুল। আসছে বছরটি যাতে পরিবার ও গ্রামসমাজের জন্য মঙ্গলময় হয়, সে জন্য বরুণের ফুল গ্রামময় গেঁথে দেওয়া হয় গোবরের দলায়। হাওরাঞ্চলে এ পর্ব আড়িবিষুসংক্রান্তি নামে পরিচিত।

অতি প্রাচীন কাল থেকেই ভেষজ গাছ হিসেবে পরিচিত। অর্থব বেদে এর কথা উল্লেখ আছে। চরক ও সুশ্রুতে এর গুনগান করে অনেক কথা উল্লেখ করেছেন। এমনকি পাশ্চাত্যেও খ্রিষ্টপূর্ব এক শতাব্দীতে এক ভেষজ পন্ডিত Crataeva এর ছাল নিয়ে অনেক পরীক্ষা করেছেন।

Read 1587 times

Leave a comment

Make sure you enter the (*) required information where indicated. HTML code is not allowed.