x 
Empty Product
Wednesday, 14 February 2018 07:41

ভারতের বাগান গুলোতে কিভাবে যত্ন নিচ্ছেন সেখানকার আম চাষীরা

Written by 
Rate this item
(0 votes)

আমগাছে প্রতি বছর ফলন পাওয়ার জন্য কয়েকটি বিশেষ পরিচর্যার দিকে নজর দিতে হবে। গাছে ফল পাড়ার পর পরই মাটির জো দেখে হালকা চাষ দিয়ে মাটি আলগা করে দিতে হবে। এতে বাগানের মাটিতে বায়ু চলাচল করবে। মাটিতে আশ্রয় নেওয়া রোগ-পোকার জীবাণু, ডিম ‍‌ও পূর্ণাঙ্গ ধাড়ী পোকা উন্মুক্ত হয়ে নষ্ট হবে। মাটিতে সঞ্চিত অবশিষ্ট খাদ্য গাছের গ্রহণীয় অবস্থায় সহজলভ্য হয়।

আমবাগানে চাষ দেবার আগে গাছপ্রতি বয়স অনুযায়ী জৈব ও অজৈব সার সুষম মাত্রায় প্রয়োগ করতে হয়। সার প্রয়োগের সঠিক জায়গা হলো গাছের গোড়া থেকে তিন মিটার বাদ দিয়ে যতদূর ডালপালা ছাতার মোত ছড়িয়েছে ততদূর। দশ বছর বা বয়স্ক গাছে ৯০০কেজি পচা গোবর/পাতা পচা/ খামার/ কেঁচো সার ১.৫কেজি ইউরিয়া, ২.২৫কেজি সিঙ্গেল সুপার ফসফেট ১.২৫ কেজি মিউরেট অব পটাশ সার প্রয়োগ করতে হবে। গাছে ফল পাড়ার পরে অর্ধেক ও অর্ধেক গুটি ধরার ১৫দিন পর প্রয়োগ করতে হবে। সেচের ব্যবস্থা না থাকলে পুরো ইউরিয়া, অর্ধেক ফসফেট ও অর্ধেক পটাশ সার সেপ্টেম্বর মাসে দিতে হবে।

আমগাছে প্রতি বছর মুকুল তথা ফলন পাওয়ার জন্য প্যাক্লোবুট্রাজোল উদ্ভিদ বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রক মাটিতে প্রয়োগ করতে হয়।

প্রয়োগ পদ্ধতি :

১। পশ্চিমবঙ্গের আবহাওয়ায় সেপ্টেম্বর মাসের ১৫-৩০তারিখের মধ্যে প্রয়োগ করলে সবচেয়ে ভালো ফল পাওয়া যায়।

২। প্যাক্লোবুট্রাজোল ব্যবহারের অন্তত তিন সপ্তাহ আগে সুষম সার অবশ্যই ব্যবহার করে রাখতে হবে।

৩। গাছের ডালপালা বিস্তৃত ছাওয়া জায়গার আগাছা তুলে দিতে হবে। প্রয়োজনে গ্রামোক্সোন দিয়ে পুড়িয়ে দিতে হবে। চব্বিশ ঘণ্টার মধ্যে সব আগাছা পুড়ে যাবে।

৪। আমগাছের ভিতরের দিকের ডালগুলি ছেঁটে দিতে হবে যাতে মাটিতে কমপক্ষে ৪০-৪৫ শতাংশ সূর্যের আলো/কিরণ এসে পড়ে।

৫। গাছের ডালপালা ছাতার মতো যতটা জায়গা জুড়ে থাকে গাছের গোড়া থেকে মেপে নিতে হবে। যত মিটার হবে তত গুণিতক ৩.৮মিলি থেকে ৪মিলি প্যাক্লোবুট্রাজোল লাগবে। উদাহরণ, ব্যাসার্ধ যদি ৫মিটার হয় তবে প্যাক্লোবুট্রাজোল লাগবে ৫×৩.৮= ১৯মিলি থেকে ৫×৪=২০মিলি। ১৫ থেকে ২০লিটার জলে ১৯-২০মিলি প্যাক্লোবুট্রাজোল মিশিয়ে নিতে হবে।

৬। আমগাছের ডালপালা বিস্তৃত জায়গায় ঠিক মাঝামাঝি জায়গায় গোল করে ৪ইঞ্চি গভীর ও দেড় ফুট চওড়া করে ড্রেন কেটে নিতে হবে।

৭। প্যাক্লোবুট্রাজোল মিশ্রিত জল ঐ ড্রেনে সমানভাবে ঢেলে দিতে হবে। জল পুরোপুরি শুকিয়ে গেলে মাটি দিয়ে ঢেকে দিতে হবে।

০সতর্কতা

১। আমগাছের বয়স কমপক্ষে ৭বছর হতে হবে।

২। নিয়মিত আগাছা পরিষ্কার না করলে আগাছাই সব খাবার রস শোষণ করে নেবে।

৩। প্যাক্লোবুট্রাজোল ব্যবহারের সময় মাটিতে যথেষ্ট রস থাকতে হবে।

৪। সুষম সার সঠিক মাত্রায় ব্যবহার করতে হবে। আম পাড়ার সাথে সাথে একবার, আর মুসুর দানা আম ধরার সময়ে একবার।

৫। ফুল/মুকুল আসার পর, আম মটর দানা অবস্থা থেকে নিয়মিত সেচ দিতে হবে।

মনে রাখবেন, যাঁরা আমগাছে সুষম সার/খাবার নিয়মিত দেবেন তারাই কেবলমাত্র প্যাক্লোবুট্রাজোল ব্যবহার করবেন। নতুবা হিতে বিপরীত হবে। গাছের ক্ষতি হবে।

(লেখক উত্তর দিনাজপুর জেলা উদ্যান পালন আধিকারিক)

Read 2338 times

Leave a comment

Make sure you enter the (*) required information where indicated. HTML code is not allowed.