x 
Empty Product

হজরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) এর মাজার

User Rating:  / 0
PoorBest 

হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) এর সমাধি: মূল সমাধির দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ যথাক্রমে ৯ ফুট ৭ ইঞ্চি ও ৬ ফুট ৭ ইঞ্চি।

হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) এর সমাধি: মূল সমাধির দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ যথাক্রমে ৯ ফুট ৭ ইঞ্চি ও ৬ ফুট ৭ ইঞ্চি।

সমাধি সৌধের  ভিতরের দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ যথাক্রমে ১৭ ফুট সাড়ে ৩ ইঞ্চি ও ১৭ ফুট সাড়ে ৩ ইঞ্চি।

সমাধির পশ্চিমধারে হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) এর ভাতিজা সম্পর্কিত হযরত শাহনূর (রহঃ) এর সমাধি বলে প্রচলন আছে। মসজিদের সামনে দরগার তোরণটি নির্মিত হয় বাংলা ১৩০৫ সালে। এটাতে আয়াতে কোরআন খোদিত একটি প্রাচীন লিপি আছে।

দরগার হুজুর খানা ও মসজিদ: দরগার হুজুর খানা রাজশাহীর প্রাচীন কৃষ্টি বৈশিষ্ট্যের প্রাচীনতম নিদর্শন। কাজী মোহাম্মদ মিছের তার রাজশাহীর ইতিহাস (১ম খন্ড) গ্রন্থে এটাকে শাহ মখদুমের হুজুর খানা বা সাধন পীঠ বলে অনুমান করেছে। তার মতে, এটাই রাজশাহী মহানগরীর প্রথম মসজিদ। এক গম্বুজ বিশিষ্ট হুজুর খানাটির পশ্চিম দেওয়ালে একটি ক্ষুদ্র মেহরাব ও পূর্ব দেওয়ালে একটি ছোট প্রবেশ পথ ছাড়া দরজা জানালা  নাই। ভিতরে ৮/১০ জন একসঙ্গে নামাজ পড়বার মত জায়গা আছে। এর উত্ত-দক্ষিণ দৈর্ঘ্য  ১৪ ফুট, পূর্ব-পশ্চিম প্রস্থ ১৩ ফুট ৭ ইঞ্চি। প্রবেশ পথের দৈর্ঘ্য ৪ ফুট সাড়ে ৩ ইঞ্চি, উচ্চতা ১১ ফুট ৫ইঞ্চি, গম্বুজের উপরের পরিসর ১৫ ফুট ৯ ইঞ্চি।

তিন গম্বুজ মসজিদ:

দরগার তিন গম্বুজ মসজিদটি নবাবী আমলে তৈরী হয় বলে জনশ্রুতি আছে। এ সম্পর্কে গল্প আছে যে, জনৈক মুসলমান সওদাগর নদী পথে বিপদগ্রস্ত হয়ে হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) কে স্মরণ করেন। তিনি সে বিপদ থেকে মুক্ত হয়ে এই মসজিদ নির্মাণ করেন। এর দৈর্ঘ্য ৪০ ফুট, প্রস্থ ১৬ ফুট, ভিতরের পরিসরের দৈর্ঘ্য ৩৪ ফুট সাড়ে ৫ ইঞ্চি, প্রস্থ ১০ ফুট ১০ ইঞ্চি। তিনটির মেহরাবের মধ্যে মধ্যবর্তীটি অপেক্ষাকৃত বড়। উত্তর-দক্ষিণ দেয়ালে দুটি করে ৪টি তাক ও ১টি করে দুটি জানালা আছে। পূর্ব দেয়ালে সমপরিমাপের ৩টি প্রবেশ পথ। এর কপাটগুলো পরবর্তীকালে নির্মিত হয়। ২০ শতাব্দীলর গোড়ার দিকে পরপর দুটি বারান্দা ও মিনারটি নির্মিত হয়।

শিলালিপি ও আলীকুলি বেগ:

হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) এর সমাধি সৌধের প্রবেশ দ্বারের উপরিভাগে জনৈক আলীকুলী বেগ কর্তৃক রচিত দৈর্ঘ্য ১০ ইঞ্চি ও প্রস্থ ৩৬ ইঞ্চি চার লাই বিশিষ্ট একটি ফারসী ভাষার লিখিত শিলা লিপি আছে। এই লিপিতে ১০৪৫ হিজরীতে শাহ্ দরবেশের কবরের উপর গম্বুজ নির্মাণের কথা উল্লেখ আছে। (১০৪৫ হিজরী বা ১৬৩৫ খ্রিঃ) শিলালিপির সারমর্ম অনুযায়ী আলীকুলী বেগ দ্বাদশ মতাবলম্বী গোড়া শিয়া মুসলমান এবং পারস্যের (ইরান) শাহ্ আব্বাসের একজন ভক্ত ছিলেন। তিনি হয়ত এদেশের নবাগত হিসাবে স্থানীয় মুসলমানদের সহনুভূতি ও সদিচ্ছা লাভের আশায় হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) এর সমাধি সৌধ নির্মাণ করেছিলেন। আলীকুলী বেগ হয়ত হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) এর প্রকৃত পরিচয় জানতেন না। তাই তিনি লিপিতে  শাহ্ দরবেশ হিসেবে হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) কে সম্বোধন করেছেন। অথচ ফারসী তায়েদাদে হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) নামের উল্লেখ আছে এবং  আজও তিনি হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) সাহেবের দরগা, হিন্দুদের নিকট মখদুম বাবা ইত্যাদি নামে অভিহিত।


বর্ণনাঃবহু পীর সাধকের পুণ্যভুমি রাজশাহী মহানগরী। যখন এই জনপদের মানুষ কুসংস্কার আর অপপ্রথার নিবিড় অন্ধকারের অতল গহ্বরে ডুবে থেকে নানান কুকর্মে লিপ্ত ছিল, দেব-দেবীর নামে নরবলি দেয়া হতো, মানুষে মানুষে ভেদাভেদ ছিল প্রকট, তখন থেকেই এ সকল পীর সাধকের আগমন ঘটতে থাকে সুদূর মধ্য প্রাচ্য ও অন্যান্য অঞ্চল থেকে। তারা অবোধ মানুষের মাঝে জ্ঞানের শিখা ছড়ানোর মহৎ উদ্দেশ্য ও বঞ্চিত মানুষের অধিকার আদায়ের প্রতিজ্ঞায় ও মনুষ্য সম্প্রদায়ের কল্যাণে জীবনের সব সময়টুকু ক্ষয় করে দেন। তাদের ডিঙ্গাতে হয় নানা প্রতিকূলতার দেয়াল। এমনকি প্রাণ বিসর্জনও দিতে হয় কাউকে কাউকে। এ সকল মহৎ প্রাণের অন্যতম পদ্মা পাড়ে চিরশায়িত হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ)।

কাজী রওশ আলী সম্পাদিত বিভাগ গাইড রাজশাহী গ্রন্থে ও হজরত শাহ মখদুম (রহঃ) দরগাহ পাবলিক ওয়াকফ এস্টেট ট্রাস্টি বোর্ড প্রকাশিত ইতিহাস ও ঐতিহ্য গ্রন্থে অধ্যাপক মুহম্মদ আবু তালিব একখানি প্রাচীন বাংলা গ্রন্থের কলমী পুথি। হজরত শাহ মখদুম (রহঃ) এর জীবনী তোয়ারিখ প্রবন্ধে হজরত শাহ মখদুম (রহঃ) এর প্রকৃত নাম হজরত সৈয়দ আব্দুল কুদ্দুস হিসেবে উল্লেখ করেছেন। তবে প্রবীণ লেখক অধ্যাপক এবনে গোলাম সামাদ তার রাজশাহীর ইতিবৃত্ত গ্রন্থে বলেন, "এই পীরের (হজরত শাহ মখদুম রহঃ) আসল  নাম কি ছিল, তা নিয়েও আছে বিতর্ক। তিনি সাধারণভাবে রাজশাহী বাসীর কাছে বাবা মখদুম নামেই পরিচিত।" তিনি আরো উল্লেখ করেন, মখদুম শব্দটি আরবী। শব্দগত অর্থে শিক্ষক, জ্ঞানী অথবা পরিচালক। তবে তিনি আধ্যাত্মিক সাধক, জ্ঞানী, কামিলিয়াত ছিলেন এই বিষয়ে কেউ দ্বিমত প্রকাশ করেনি। বিভিন্ন গ্রন্থে দৃষ্টিপাত করলে দেখা যায়, হজরত শাহ মখদুম (রহঃ) ছিলেন বড় পীর আব্দুল কাদের জিলানী (রহঃ) এর পৌত্র এবং আজাল্লা শাহ্ এর ২য় পুত্র। তিনি ৬১৫ হিজরীর ২ রজব বাগদাদে জন্ম গ্রহণ করেন। রুপোশ তার উপাধী। শব্দটি ফারসী। যার অর্থ মুখ আবরণকারী। তার উপাধি থেকে একথা বোঝা যায় যে, সাধারণ মানব বৈশিষ্ট্য ছাড়াও তার মধ্যে অসাধারণ ক্ষমতা লুকায়িত ছিল। হজরত শাহ মখদুম (রহঃ) এর রাজশাহী আগমনের অন্তরালে আছে এক বিস্তৃত ইতিহাস।


১২৫৯‌ খ্রিষ্টব্দে মোধল বীর হালাকু খান বাগদাদ আক্রমণ করলে বড়পীর আব্দুল কাদের জিলানীর বংশধরগণ বাগদাদ থেকে কাবুল, কান্দাহার, পারস্য ও পাক ভারতের বিভিন্ন স্থানে আশ্রয় গ্রহণ করে। হযরত শাহ্ মখদুম রুপোশ (রহঃ) ‌এর পিতা আজ্জালা শাহ্ দিল্লীতে আশ্রয় গ্রহণ করেন। তার উন্নত চরিত্র ও গুণাবলীর প্রতি মুগ্ধ হয়ে দিল্লীর সম্রাট ফিরোজ শাহ্ তার কাছে বায়েত হন। পিতার সহচার্যে তিন পুত্র সৈয়দ মুনির উদ্দীন আহমেদ (রহঃ), হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ), ও সৈয়দ আহমদ তম্বরী (রহঃ) অধ্যাত্মিক সাধনায় সমৃদ্ধ লাভ করেন। হালাকু খানের মৃত্যুর পর শাহ আজ্জালা বাগদাদে ফিরে গেলেও তার পুত্রগণ ইসলামের বাণী প্রচারের মাধ্যমে মানুষকে হেদায়েতের উদ্দেশ্যে অনুচরবর্গসহ বাংলায় আগমন করেন। তখন রাজশাহীর নগরীর নাম ছিল মাহকাল গড়। এখানে মাহকাল দেও এর বিখ্যাত মন্দিরে নরবলি দেওয়া হতো। তার স্মৃতি এখনও হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) এর পবিত্র দরগা শরীফে রক্ষিত আছে। মহাকাল গড়ে সে সময় বহু রকম দেও এর প্রতিমূর্তি ও মঠ-মন্দিরে পূর্ণ ছিল।

হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) রাজশাহী আগমনের ১০ বছর পূর্বে হযরত তুরকান শাহ্ ইসলাম প্রচারের উদ্দেশ্যে ১২৭৯ খ্রিষ্টাব্দ মহাকাল গড়ে আগমন করেন। ঐ সময়ে রাজ্য শাসন করতেন অংশুদেও চান্তভন্ডী বর্মভোজ ও অংশুদেও খেজ্জুর চান্দ খড়গ বর্মগুজ্জুভোজ। মুসলিম বিদ্বেষী এই রাজাগণের দ্বারা তুরকান শাহ্ ও তার অনুচরগণ শহীদ হন। তার মাজরও দরগা পাড়ায় আছে। তুকান শাহ্‌ 'র আগমনের পূর্বেও কতিপয় মুসলমান ইসলাম প্রচারের উদ্দেশ্যে মহাকাল গড়ে আগমন করেন এবং শহীদ হন। এসকল হত্যাকন্ডের প্রতিশোধ ও ইসলাম প্রচারের উদ্দেশ্যে হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) ১২৮৯ খ্রিষ্টাব্দে এ দেশ আগমন করে বাঘা নামক স্থানে উপস্থিত হন এবং ইসলাম প্রচারে আত্মনিয়োগ করেন। তিনি যে স্থানে কেল্লা নির্মাণ করেছিলেন তা মখদুম নগর নামে খ্যাত। বাঘা ছিল তৎকালীন সময়ের প্রসিদ্ধ নগরী। এই নগরীর সাথে সুলতানগণের প্রশাসনিক যোগসূত্র ছিল। গৌড়ের সুলতান হোসেন শাহ্ র পুত্র নসরৎ শাহ্ ৯৩০ হিজরিতে বাঘা শরীফ পরিদর্শন করেন এবং একটি মসজিদ ও একটি পুকুর খনন করার নির্দেশ দেন। দিল্লীর বাদশাহ শাহজাহান মখদুম নগরীতে অবস্থিত মখদুম দরগাহ সংরক্ষণের জন্য ৪২টি মৌজা দান করেছিলেন।

হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) কর্তৃক মহাকালগড় দখল সম্পর্কে বেশ লোমহর্ষক ও রহস্যময় ঘটনা শোনা যায়। কথিত আছে মহাকাল গড়ের এক নাপিতের ৩টি পুত্র সন্তান ছিল। তন্মধ্যে দুটি নরবলি হওয়ার পর শেষ পুত্রটিও নরবলি দেবার সিদ্ধান্ত হয়। একথা জানার পর নাপিত দম্পতি দুঃখে শোকে ব্যাকুল হয়ে পড়েন এবং নিরুপায় হয়ে গোপনে মখদুম নগরে উপস্থিত হন। হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) বিস্তর ঘটনা শোনার পর বলেন, যাও তোমার সন্তানসহ নদীর ধারে অপেক্ষা কর আমার সাক্ষাৎ পাবে।

এই নির্দেশ পাওয়ার পরে বেশ কদিন নাপিত দম্পতি নদীর তীরে অপেক্ষা করেও হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) সাক্ষাৎ না পেয়ে বলি হবার পূর্ব রাতে ডুবে মরার ইচ্ছায় পদ্মার পানিতে নামতেই হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) পদ্মায় কুমিরে চড়ে আবির্ভূত হন এবং নাপিত দম্পত্তির সাথে কিছু কথা বলেন এবং পুত্র বলি না হওয়ার ও দেওরাজ ধ্বংস হওয়ার আশ্বাস দিয়ে কুমিরে চড়েই অন্তর্ধান হন। হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) এর জীবনী তোয়ারিখে উল্লেখ আছে, মহাকালগড়ের মন্দির প্রাঙ্গণে প্রাচীর বেষ্টিত যাদুকুন্ড কূপ ছিল। দেও রাজাদ্বয় তা দ্বারা যাদুবিদ্যা পরিচালনা করে অসম্ভব অলৌকিক কার্য সফল করে নিজেকে ঈশ্বর হিসেবে দাবি করত। হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) ঐ নাপিতের কাছে সন্ধান নিয়ে যাবার কালে ঐ স্থান পরিদর্শন করে ঐসব যাদুগুণ নষ্ট করে যান। পরে ঐ যাদু স্থান উৎঘাটন করা হয়। তার তলদেশ হতে বিভিন্ন দেও পুতুল, নানা প্রকার জিনিস, অস্থী এবং ১টি জলীয় বৃক্ষ বের হয়েছিল। বর্তমানে ঐ স্থান পুকুর রুপে রয়েছে।

রাত অবসানের পর  সকালে নাপিত পুত্রকে বলি দেবার জন্য দেও মন্দিরে আনা হলো। কিন্তু খাড়ার ঘাতে নাপিত পুত্র বলি হওয়া তো দূরের কথা বিন্দুমাত্র কষ্টও অনুভব করল না। বরং মহাকাল প্রতিমা পড়ে যাবার মত লেতে শুরু করল। দেওরাজের নিকট এ সংবাদ পৌছালে সে ছুটে এসে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে এই নরে দোষ আছে বলে নাপিত পুত্রকে ছেড়ে দেয়। এর কয়েক দিন পর হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) দেওরাজ্যের বিরুদ্ধে মহাকালগড় জয়ের উদ্দেশ্যে মওলাং ফকির, দরবেশ, গাজি দল পাঠিয়েছিলেন। পর পর তিনবার যুদ্ধ করার পর হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) মহাকালগড়ে নরবলি প্রথার পরিবর্তে ইসলামের ঝান্ডা উড়িয়েছিলেন। প্রথম যুদ্ধ সংঘটিত হয়েছিল বর্তমান ঘোড়ামারায়। এই যুদ্ধে দেও ধর্মাবলম্বীসহ অনেক ফকিরগণও মারা পড়েছিলেন এবং তাদের ঘোড়াও শহীদ হয়েছিত। ঘোড়া শহীদের কারনেই স্থানটির নামকরণ হয় ঘোড়ামারা। দ্বিতীয় যুদ্ধে হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) সাহেব মওলাং ফকির দরবেশকে গাজী প্রেরণ করেছিলেন এবং তিনি স্বয়ং বহু মওলাং ফকির সঙ্গে করে মহাকালগড়ে উপস্থিত হয়েছিলেন। যুদ্ধে বহু দৈত্য ধর্মাবলম্বী ধরাশায়ী হয়েছিল।

অনেক মঠ-মন্দির ভেঙ্গে চুরমার ও লুণ্ঠিত হয়েছিল। দৈত্যরাজ স্বপরিজনে পালিয়েছিল এবং হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) বিজয়ী হয়ে মখদুম নগরে প্রত্যাগমন করেছিলেন। এরপর বনবাসী দৈত্যরাজের দৈত্য ধর্মাবলম্বীরা পুনরায় সমবেত হয়ে তীর্থস্থান উদ্ধারের জন্য মাহাকালগড়ে উপস্থিত হয়েছিল। এই সংবাদ পেয়ে হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) পুনরায় মহাকালগড়ে আগমন করে সমবেত প্রতিপক্ষ দলকে পাক পায়ের মাত্র ১ পাট খড়ম ছুড়ে ধরাশায়ী করেছিলেন। অবশেষে পরিজনসহ দেওরাজ তার পায়ে পড়ে আত্মসমর্পণ করেছিল ও ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছিল। হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) মহাকাল দেও মন্দিরেই আস্তানা স্থাপন করেছিলেন। পানি পথে তার ছিল কুমীর বাহন, শুন্য পথে বসিবার পীড়ি আসন বাহন, শুস্ক পথে সিংহ ও বাঘ্র বাহন। তার অলৌকিক ঘটনা, বোজর্গী কেরামত দেখে অনেকে ঈমান এনে মুসলমান হয়েছিল। অনেকে সভ্য হিন্দু সমাজে নীত হয়েছিল ও অনেকে তাকে বড় যাদুগরী বলে প্রচার করেছিলন।

হযরত শাহ মখদুম রুপোশ (রহঃ) বাংলায় দেওজাতিকে ইসলামের সমহান আদর্শে দিক্ষীত করার উদ্দেশ্যে ১২৮৯ খ্রিষ্টাব্দে রাজশাহী বা সেকালের মহাকালগড়ে আগমন করে সফল নেতৃত্ব দান করে ১৩৩১ খ্রিষ্টাব্দে পরলোক গমন করেন। তার মৃত্যর পরও দরগা শরীফকে কেন্দ্র করে ইসলাম প্রচারের কাজ চলতে থাকে। তার শিষ্য ও অনুসারীগণের মধ্যে অন্যতম হিসেবে যাদের নাম পাওয়া যায় তারা হলেন- হযরত শাহ্ আব্বাস (রহঃ) (মখদুম নগরে প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে তার মাজার বিলীন হয়ে গেছে), শাহ্ রকম আলী (রহঃ) (পুঠিয়া-বিড়ালদহ), হযরত দিলাল বোখারী (রহঃ) (আলাইপুর, বাঘা), হযরত শাহ্ সুলতান (রহঃ) (সুতানগঞ্জ, গোদাগাড়ী)

Leave your comments

0
terms and condition.
  • No comments found