x 
Empty Product

ঝামেলাবিহীন আমের আচার

User Rating:  / 1
PoorBest 

এসেছে আমের মৌসুম। কাঁচা পাকা আমে বাজার ভরে গেছে। কেউ কাঁচা আম খেতে ভালোবাসেন, কেউ পাকা আম খেতে ভালোবাসেন। কেউ বা রান্নায় ভিন্ন স্বাদের জন্য কাঁচা আম ব্যবহার করেন।

এসেছে আমের মৌসুম। কাঁচা পাকা আমে বাজার ভরে গেছে। কেউ কাঁচা আম খেতে ভালোবাসেন, কেউ পাকা আম খেতে ভালোবাসেন। কেউ বা রান্নায় ভিন্ন স্বাদের জন্য কাঁচা আম ব্যবহার করেন।



আবার অনেকেই আমের আচার তৈরী করে থাকেন। মজাদার আমের আচার কার না ভালো লাগে।

আমের আচার বানানো অনেকের কাছে ঝামেলা মনে হয়। আপনাদের ঝামেলা থেকে মুক্তি দিতে মজাদার আমের আচারের একটি রেসিপি দেয়া হল নিচে।

উপকরণ:
 আম- ৪ থেকে সাড়ে ৪ কেজি
 রসুন- ১/২ কেজি
 পাঁচফোঁড়ন- ১/২ কাপ
 সরিষা - ১/৪ কাপ
 সরিষার তেল- দেড় কাপ
 শুকনা মরিচ- ৫ থেকে ৬ টা
 আখের গুড় - ৩ থেকে ৪ টেবিল চামচ
 চিনি- পরিমাণমত
 লবন- পরিমাণমত
 হলুদ- অল্প পরিমাণে
 সিরকা- ১/২ কাপ
 জিরা টালা গুড়া- ১ টেবিল চামচ

প্রনালী:
 প্রথমে আম ছোট ছোট করে হালকা করে থেঁতো করে নিন। লবন ও অল্প হলুদ দিয়ে মাখিয়ে চালুনিতে রেখে দিন ঘণ্টা দুয়েক। এভাবে রাখলে আম পানি বের হবে ও আম থেকে টকভাব কমে যাবে।

সবটুকু রসুন ভাল করে খোসা ছাড়িয়ে এর ৩/৪ ভাগ নিয়ে হালকা থেঁতো করে নিন। বেশি থেঁতো করতে যাবেন না। ২/৩ পরিমাণ পাঁচফোড়ন ও ১/২ পরিমাণ সরিষা নিয়ে এক সাথে আধা গুঁড়ো করে নিন। বাকি সরিষা ও পাঁচফোড়ন সরিয়ে রাখুন।

চুলায় সরিষার তেল গরম করে শুকনা মরিচ ও গোটা পাঁচফোড়ন দিন। এরপরে দিন গোটা সরিষা। সরিষা ও পাঁচফোড়ন একটু ভাজাভাজা হলে থেঁতো ও গোটা সব রসুন এক সাথে দিন। দিয়ে অল্প করে ভাজুন। হালকা ভাজা হলে গুঁড়ো করা সরিষা ও পাঁচফোড়নের মিশ্রণ, গুড়, লবন দিন। আপনার আচারের টক কেমন হবে তার উপর ভিত্তি করে গুঁড় দিতে হবে। এরপর জিরা গুঁড়ো দিয়ে দিন। এভাবে কিছুক্ষণ জাল দিন যেন রসুনটা কিছুটা ভাজা ভাজা হয়ে যায়।

সিরকা দিয়ে ২ মিনিট জ্বাল দিতে হবে। আম থেকে সব পানি ঝরে গেলে তা ঢেলে দিয়ে ভাল করে নাড়ুন। ২ থেকে ৩ মিনিট নাড়ার পর চেখে দেখুন আপনার পছন্দমত টক-মিষ্টি হয়েছে কি না। গুড়ের পরিবর্তে চিনিও দিতে পারেন।

সবকিছু "ব্যালেন্স" করার জন্য সিরকাও দিতে পারেন। ভালো করে কিছুক্ষণ জ্বাল দিন। কাঙ্ক্ষিত স্বাদ পেলে নামিয়ে নিন। আপনার মজাদার স্বাদের আম রসুনের ঝুরি আচার এবার তৈরী।

সতর্কতা:
 আম যেহেতু শুকাতে হবেনা তাই ঝুরি গুলো যেন পাতলা হয় তা মনে রাখতে হবে। বেশি মোটা হলে ঠিক মত জ্বাল না হলে আচারে ফাঙ্গাস পড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকবে। আচারে সিরকা দিতে ভুলবেন না। সিরকা দিলে আচারে ফাঙ্গাস পড়বেনা। ২ থেকে ৩ দিন পর পর আচার রোদে দিলে অনেক দিন ভাল থাকবে।

Leave your comments

0
terms and condition.
  • No comments found