x 
Empty Product

কখন আম কিনবেন

User Rating:  / 1
PoorBest 

দেখে নিন আম পরিপক্বতার আসল সময়:

ধোকায় পড়বেন না। প্রতিটি আম পাকার নির্দিষ্ট সময় আছে। ২০ মের আগে প্রাকৃতিকভাবে পাকা আম স্বাভাবিক নয়। তবে বাজারে যে আম দেখা যায় তার অধিকাংশ বিষাক্ত কার্বাইড দিয়ে পাকানো।  কখন কোন সময়ে কোন আম পাকে তার একটা মডেল তুলে ধরা হলো:

আমের নাম

পরিপক্বতার সময়

বাজারে

অবস্থান করে

প্রাথমিক

দাম

গুটি বা আঁঠি

২০-২৫  মে

প্রায় ০৭ সপ্তাহ

২৫/= টাকা

গোপালভোগ

২০-২৫  মে

প্রায় ০৪ সপ্তাহ

৫৫/= টাকা

বৃন্দাবনী

২০-২৫  মে

প্রায় ০২ সপ্তাহ

৭০/= টাকা

বৈশাখী

২০-২৫  মে

প্রায় ০১ সপ্তাহ

৬০/= টাকা

মিয়ার চারা

২৫-৩০  মে

প্রায় ০১ সপ্তাহ

৬০/= টাকা

কুয়া পাহাড়ি

২৫-৩০  মে

প্রায় ০১ সপ্তাহ

৫৫/= টাকা

কালুয়া

২৫-৩০  মে

প্রায় ০১ সপ্তাহ

৫০/= টাকা

বোম্বাই গুঠি

২৫-৩০  মে

প্রায় ০২ সপ্তাহ

৫৫/= টাকা

ক্ষুদি ক্ষিরসা

২৫-৩০  মে

প্রায় ০২ সপ্তাহ

৫৫/= টাকা

দুধস্বর

২৫-৩০  মে

প্রায় ০১ সপ্তাহ

৭০/= টাকা

হিমসাগর

২৫-৩০  মে

প্রায় ০৬ সপ্তাহ

৫৫/= টাকা

ক্ষীরশাপাত

২৫-৩০  মে

প্রায় ০৬ সপ্তাহ

৫৫/= টাকা

রানিপসন্দ

২৫-৩০  মে

প্রায় ০২ সপ্তাহ

৬৫/= টাকা

ল্যাংড়া

০৫-১০  জুন

প্রায় ০৬ সপ্তাহ

৫৫/= টাকা

বোগলা

০৫-১২  জুন

প্রায় ০৩ সপ্তাহ

৫০/= টাকা

লক্ষনভোগ

০৫-১২  জুন

প্রায় ০৬ সপ্তাহ

৫০/= টাকা

সুরমা

১৫-২০  জুন

প্রায় ০৪ সপ্তাহ

৬৫/= টাকা

ললিতা

১৫-২০  জুন

প্রায় ০২ সপ্তাহ

৬০/= টাকা

ফজলি

১৫-২২  জুন

প্রায় ০৯ সপ্তাহ

­৫৫/= টাকা

রাজ-লখনা

১৫-২২  জুন

প্রায় ০৯ সপ্তাহ

­৫৫/= টাকা

আম্রপালি

২০-২৫  জুন

প্রায় ০৩ সপ্তাহ

৭৫/= টাকা

আশ্বিনা

১০-১৫  জুলাই

প্রায় ০৯ সপ্তাহ

৫০/= টাকা

ঝিনুক

১৫-২০  জুলাই

প্রায় ০৫ সপ্তাহ

৬৫/= টাকা

গোপালভোগ

২০-২৫  মে

প্রায় ০৪ সপ্তাহ

৫৫/= টাকা

 

দেখে নিন কোন সপ্তাহে আমের দাম কেমন থাকে:

আমের দাম নিয়েও অনেকে বিভ্রান্তিতে পড়েন। আম পাকার শুরুর দিকে আমের দাম অনেক কম থাকে। আবার শেষের দিকে একই আমের দাম প্রায় কয়েকগুন বেড়ে যায়। তাই সময় মত আম কিনলে পছন্দের আম টি অনেক কম মুল্যে পাওয়া যেতে পারে। গ্রাহকের সুবিধার্থে নিন্মে একটি নমুনা তালিকা তুলে ধরা হলো:

মাস

সপ্তাহ

গুটি

গোপাল

হিমসাগর

ল্যাংড়া

বোগলা

লখনা

আম্রপালি

সুরমা

ফজলি

ঝিনুক

আশ্বিনা


এপ্রিল

৩য়

আচারের আম: ০২-০৫/=কেজি

নাই

নাই

নাই

নাই

আচার: ০৩-০৫/=

আচার: ০৩-০৫/=

৪র্থ

আচারের আম: ০৫-০৭/=কেজি

আচারের আম: ০৩-০৫/= কেজি

আচার: ০৫-০৮/=

আচার: ০৩-০৫/=



মে

১ম

আচারের আম: ০৭-১২/= কেজি

আচারের আম: ০৫-১০/= কেজি

আচার: ০৮-১০/=

আচার: ০৫-০৮/=

২য়

আচারের আম: ১২-২০/= কেজি

আচারের আম: ১০-১৫/= কেজি

আচার: ১০-১৫/=

আচার: ০৮-১০/=

৩য়

২৫-৩০

৫৫-৬৫

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

আচার: ১৫-২০/=

আচার: ১০-১২/=

৪র্থ

৩০-৩৫

৬৫-৭৫

৫৫-৭০

নাই

নাই

নাই

নাই

আচার: ২০-৩৫/=

আচার: ১২-১৫/=



জুন

১ম

৩৫-৪৫

৭৫-৯০

৭০-৮০

৫৫-৭০

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

আচার: ১৫-২০/=

২য়

৩৫-৪৫

৭৫-২৫০

৮০-৯০

৭০-৮০

৫০-৬০

৫০-৬০

নাই

নাই

নাই

আচার: ২০-২৫/=

৩য়

৪৫-৫৫

নাই

৯০-১২০

৮০-৯০

৬০-৮০

৬০-৭০

৭৫-৯০

৬৫-৭৫

৫৫-৬৫

আচার: ২৫-৩০/=

৪র্থ

৫৫-৭৫

নাই

১২০-১৫০

৯০-১২০

৮০-১৫০

৭০-৭৫

৯০-১২০

৭৫-৮৫

৬৫-৭৫

নাই

নাই



জুলাই

১ম

৭৫-১২০

নাই

১৫০-২৫০

১২০-১৮০

নাই

৭৫-৮০

১২০-২৫০

৮৫-১০০

৭৫-৮৫

নাই

নাই

২য়

নাই

নাই

নাই

১৮০-২৫০

নাই

৮০-১০০

না

১০০-১২০

৮৫-১০০

নাই

নাই

৩য়

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

১০০-১২০

নাই

নাই

১০০-১২০

নাই

৫০-৬০

৪র্থ

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

১২০-১৫০

৬৫-৭৫

৬০-৭০



আগষ্ট

১ম

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

১৫০-৩০০

৭৫-৯০

৭০-৮০

২য়

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

৩০০-৪৫০

৯০-১২০

৮০-১০০

৩য়

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

৪৫০-৭০০

১২০-১৫০

১০০-১২০

৪র্থ

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

১৫০-৩০০

১২০-২০০


সেপ্টমবার

১ম

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

২০০-৩০০

২য়

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

৩০০-৪৫০

৩য়

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

নাই

৪৫০-৬০০

 

 

 

জেনে নিন কিভাবে আম ব্যাবসায়ীরা আপনাকে ঠকায়:

এক গাছের সব আম একসাথে পাকে না।কিন্ত দোকানে বা ভ্যানে সব আম পাকা  পাওয়া যায়। কিভাবে?  আবার এত্ত এত্ত পাকা আম, কিন্তু পঁচা আম একটাও নাই, টেবিলে/ভ্যানের নিচেও নাই। কিভাবে?

  *  আম  ক্যারেট করার  পূর্বে আম গুলোতে  ফরমালিন ও কার্বাইডের মিশ্রন স্প্রে করে শুকানো হয়। প্রশাসনের কড়াকড়ি থাকলে গাছ থেকে আম নামানোর ২/৩ ঘন্টা পূর্বে ঐ মিশ্রন গাছেই স্প্রে করা হয়। খুব নজরদারী থাকলে ট্রাকে ভালো আমের মাঝে অতিরিক্ত কেমিক্যাল যুক্ত মাত্র ০২ টা ক্যারেট মাঝখানে বসিয়ে ট্রাক কে ভালোভাবে ঢেকে দাওয়া হয়। রাস্তায় কয়েক ঘন্টার মধ্যেই গাড়ির সব আমে ঐ কেমিক্যাল গ্যাস পৌছে যায়।

  *  নাটিভো,  সেভিন, ডাইথ্রিন নামক কিছু কেমিক্যাল পাওডার পাওয়া যায় যার অপব্যাবহারে আম থাকে চকচকে দাগমুক্ত। এগুলো ৫/৭ দিন পর পর স্প্রে করা হয়। এটা দেহের জন্য ক্ষতিকর।কিন্তু এটা পরীক্ষা করার মেশিন এখন পর্যন্ত বাজারে আসেনি।

  *  হিমসাগর আর বোগলা  , আশ্বিনা আর সুরমা  ,  ছোট ফজলি আর বড় আশ্বিনা  , হাড়িভাংগা আর গুঠি  , রানিপছন্দ আর গোপালভোগ সহ আরও কিছু আম আছে যারা দেখতে একই রকম। কিন্তু দুয়ের মধ্যে দামে অনেক কমবেশি।মিথ্যা বলে অনেকেই আপনার কাছে কমদামি আমটি বিক্রি করে। গ্রাহক ঠকানোর এ পদ্ধতিটা সচারচর দেখা যায়।

 

 

Leave your comments

0
terms and condition.
  • No comments found