x 
Empty Product

বাউ আম-৩

User Rating:  / 0
PoorBest 

বাংলাদেশে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্যারতত্ত্ব বিভাগের প্রফেসর ড.মোহাম্মদ আব্দুল রসিদ ১৯৯০ সাল থেকে গবেষনা শুরু করে   ২০০৯ সালে উদ্ভাবন করলেন ডায়াবেটিক্স রোগীদের জন্য উপযুক্ত বিশেষ একটি ফল বাউ আম-৩।

বাংলাদেশে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্যারতত্ত্ব বিভাগের প্রফেসর ড.মোহাম্মদ আব্দুল রসিদ ১৯৯০ সাল থেকে গবেষনা শুরু করে   ২০০৯ সালে উদ্ভাবন করলেন ডায়াবেটিক্স রোগীদের জন্য উপযুক্ত বিশেষ একটি ফল বাউ আম-৩।

ইতপূর্বে তিনি বাউকূল উদ্ভাবন করে দেশব্যাপি সাড়া জাগিয়েছিলেন। বাংলাদেশে ডায়াবেটিক্স রোগে আক্রান্ত রোগীদের সংখ্যা দিন দিন বেড়েছে। এই রোগে আক্রার্ন্ত অনেকেই বেশি বেশি করে ভালো জাতের আমখেতে চাইলেও বাস্তব কারণে শখ পুরন করতে পারে না। বাংলাদেশের এই কৃতীবিজ্ঞানীরা উদ্ভাবিত ফলটি সেই অভাব পূরণ করছে।
    বাউ আম-৩ বা ডায়াবেটিক্স আমগাছ দেখতে বামনাকৃতির। এই জাতটি নিয়মিত ফল ধারণকারী। প্রতি বছর দুইবার ফলন হয়। প্রথমবার জানুয়ারী মাসের মাঝামাঝি তেকে ফেব্রুয়ারী মাসের প্রথম সপ্তাহের মধ্যে ফল আসবে। দ্বিতীয়বার মুকুল আসবে মে মাস থেকে জুন মাসের মধ্যে। ফুল আসা থেকে পরিপক্ব হতে ৫ মাস সময় নেয়। ফলের আকার মাঝারি ও লম্বাটে ধরনের। এই আমে রসের পরিমান তুলনামূলকভাবে কম, সামান্য আঁশ রয়েছে, মিষ্টতার পরিমান আন্যনআমের চেয়ে কম। আমটি খেতে সুস্বাদু। বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের জার্মপ্লাজম সেন্টার এই আমের চারা সংরক্ষন শুরু করেছে। আশা করা যায়, এই জাতটি অচিতেই দেশব্যাপি ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করবে। অপর নাম -ডায়াবেটিক আম

Leave your comments

0
terms and condition.
  • No comments found