x 
Empty Product

আনোয়ার রাতাউল

User Rating:  / 0
PoorBest 

ভারতের উত্তর প্রদেশে মিরাট নামে একটি জেলা রয়েছে। মিরাট নামের একটি শহর ও রয়েছে এই রাজ্যে। সেখানকার একটি গ্রামের নাম রাতাউল।

ভারতের উত্তর প্রদেশে মিরাট নামে একটি জেলা রয়েছে। মিরাট নামের একটি শহর ও রয়েছে এই রাজ্যে। সেখানকার একটি গ্রামের নাম রাতাউল।

গ্রামটিতে বাস করতেন আনোয়ার নামে একজন ব্যাক্তি। তাঁর বাড়িতে জন্ম নিয়েছিল বিখ্যাত এই আমের জাতটি। জানা যায়, দুধিয়াগোলা নামের একটি বিখ্যাত জাতের আমের আঁটি থেকে জন্ম নেয় আনোয়ার রাতাউল। যেহেতু আনোয়র সাহেবের বাড়িতে জন্ম নিয়েছে আর গ্রামের নাম রাতাউল, স্বাভাবিক কারণে আমটির নামকরণ হয়ে যায় আরোয়র রাতাউল। আমটির গুণাগুণের কথা অল্প সময়ের মধ্যেই ছড়িয়ে গেল। কলমের মাধ্যমে আস্তে আস্তে উত্তর প্রদেশে, বিহার, উভয় পাঞ্জাব, সিন্ধু এসকল অঞ্চলে ছড়িয়ে যেতে থাকে দ্রুত গতিতে। বর্তমানে পাকিস্তানে উৎপন্ন কয়েকটি বিখ্যাত জাতের মধ্যে আনোয়ার রাতাউল অন্যতম। আমটি নিয়ে কূটনীতিও চলছে। ২০১১ সালে পাকিস্তানের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইউসুফ রাজা গিলানী কয়েক বিখ্যাত জাতের মধ্যে আনোয়ার রাতাউল অন্যতম। আমটি নিয়ে কূটনীতিও চলেছে। ২০১১ সালে পাকিস্তানের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইউসুফ রাজা গিলানী কয়েক ঝুড়ি আনোয়ার রাতাউল পাঠিয়েছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং-এর কাছে। বাংলাদেশে জুন মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে আমটি পাকা শুরু হয়। সেই হিসেবে এটিকে মধ্য মৌসুমি জাত বলা হয়। আমের আকার ছোট, গোলাকার, দুই দিকের কাঁধ প্রায় সমান। ঠোঁট প্রায় নেই বললেই চলে। ত্বক মসৃণ শাঁস রসাল, মোলায়েম এবং সুমিষ্ট। অত্যন্ত সুস্বাদু এবং সগন্ধযুক্ত আমটির শাঁসের রং এপ্রিকট ফলের রং-এর মতো অর্থাৎ অনেকটা কমলাভ। আমটি আঁশবিহীন, খোসা পাতলা, এবং মিষ্টতার পরিমাণ ২১%। পাকলে হলুদ বর্ণ ধারণ করে। ওজন ১৫০ থেকে ১৭০ গ্রামের মধ্যে। গাছটির আকার মাঝারি। চাঁপাইনবাবগঞ্জ ও রাজশাহীর রানিপছন্দ কিংবা সফদর পছন্দ (বিড়া) অথবা গিাড়দাগী এসকল জাতের আমগুলোর সাথে আনোয়ার রাতাউলের মিল রয়েছে বাহ্যিক ক্ষেত্রে। চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলাধীন মনাকশা নামক এলাকার জমিদার শাহ মোহাম্মদ চৌধুরী গত শতাব্দীর ত্রিশের দশকে ভারতের উত্তরপ্রদেশ থেকে কয়েকটি আনোয়ার রাতাউল আম গাছের চারা সংগ্রহ করে পাগলা নদীর তীরবর্তী তার নিজস্ব বাগানে রোপণ করেছিলেন। উক্ত বাগানে এখন অবধি কয়েকটি গাছ রয়েছে। বাংলাদেশে আবহাওয়ায় আনোয়র রাতাউল জুন মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে পাকে। সে হিসেবে বাংলাদেশে এটি মধ্য মৌসুমি জাতের আম। তবে উত্তরপ্রদেশে ও পাঞ্জাবে এই আম পাকে জুলাই মাসের শুরুতে। সেই হিসেবে পাকিস্তান ও ভারতের এটি নাবি জাত। ভারত ও পাকিস্তান উভয় দেশ থেকেই প্রচুর পরিমাণে আনোয়ার রাতাউল বিদেশে বিশেষ করে মধ্যেপ্রাচ্যের দেশগুলোতে রপ্তানি হচ্ছে। জানামতে, মনাকশার বাগান থেকে এই জাতটি এখন অবধি কলমের মাধ্যমে আশেপাশের কোথাও ছড়িয়ে যায়নি। চাঁপাইনবাবগঞ্জ এবং রাজশাহীর আম গবেষনা কেন্দ্রের কর্তৃপক্ষ উৎকৃষ্ট এই জাতটি সংগ্রহ করে দেশের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে পারেন।

Leave your comments

0
terms and condition.
  • No comments found