x 
Empty Product

টপওয়ার্কিং

User Rating:  / 0
PoorBest 

টপওয়ার্কিং হল বয়স্ক আঁটির গাছ কমমের গাছে রূপান্তর্। এই পদ্ধতিটি ইদানীং বেশ জনপ্রিয় এবং কার্যকর হয়েছে। অনেক সময় আম চাষীরা নার্সারি থেকে ভাল কলমের চারা জেনে ক্রয় করেন এবং নিজেদের বাগানে রোপণ করেন।

টপওয়ার্কিং হল বয়স্ক আঁটির গাছ কমমের গাছে রূপান্তর্। এই পদ্ধতিটি ইদানীং বেশ জনপ্রিয় এবং কার্যকর হয়েছে। অনেক সময় আম চাষীরা নার্সারি থেকে ভাল কলমের চারা জেনে ক্রয় করেন এবং নিজেদের বাগানে রোপণ করেন।

দীর্ঘ ৮/১০ বছর এই গাছের পিছে শ্রম দিয়ে শেষে গাছের ফলটি যদি কাঙ্খিত উৎকৃষ্ট জাতের না হয় সেক্ষেত্রে এটি অত্যন্ত বেদনার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। টপওয়ার্কিং পদ্ধতি এই আফশোসের সমাধান করে দেয়। বেশিরভাগ আঁটির আম গুণে-মানে ভাল নয়। টপওয়ার্কিং পদ্ধতির মাধ্যমে কাঙ্খিত আমের জাত রূপান্তরিত করা সম্ভব। মোটামুটি ৮-১০ বছর বয়সী বা এর থেকে অধিক বয়সের আমগাছের বেশ কয়েকটি প্রধান শাখা থাকে। প্রত্যেকটি প্রধান শাখা থেকে আরও অনেক শাখাপ্রশাখা ছেঁটে ফেলতে হবে। কাটা স্থান থেকে নতুন শাখা বের হবে, এ শাখাগুলোর বয়স যখন ৩-৪ মাসের এবং দেখতে সবল ও সতেজ হবে, সে সময় নির্বাচিত গাছ থেকে সায়ন সংগ্রহ করে আঁটির গাছের এই নতুন শাখাপ্রশাখায় ১৫-২০টি ভিনিয়ার কলম করতে হবে। এভাবে বিস্তার লাভ করতে থাকবে। পরের বছর আর একটি মুল শাখা একইভাবে রূপান্তরিত করে পুরা গাছটিকেই কাঙ্খিত উৎকৃষ্ট আমের জাতে পরিণত করা সম্ভব।

Leave your comments

0
terms and condition.
  • No comments found