x 
Empty Product

ভাদুরিয়া কালুয়া

User Rating:  / 1
PoorBest 

নাবি জাতের আম। ভাদ্র মাসেও পাওয়া যায় বলে এরূপ নামকরণ হয়েছে। স্থানীয়ভাবে অনেকে কালুয়া বলে থাকেন। আমটির গড়ন লম্বাটে, ৪ থেকে ৫ ইঞ্চি।

নাবি জাতের আম। ভাদ্র মাসেও পাওয়া যায় বলে এরূপ নামকরণ হয়েছে। স্থানীয়ভাবে অনেকে কালুয়া বলে থাকেন। আমটির গড়ন লম্বাটে, ৪ থেকে ৫ ইঞ্চি।

পিঠের চেয়ে পেটের অংশ মোটা। নিন্মাংশ সামান্য ধনুকাকৃতির। জুলাই মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে গাছে পোক্ত হয়। ওজন ৩৫০ থেকে ৩৭৫ গ্রামের মধ্যে। ত্বক মসৃণ নয়। ত্বকের রং কালচে সবুজ। পাকলেও রংয়ের কোনো পরিবর্তন হয় না। খোসা পুরু। খোসা ছাড়লে হালকা হলুদ, আটির কাছাকাছি অংশের রং হালকা কমলা। শাঁস কচকচে। আমটি কেটে খাবার উপযুক্ত। আটিতে আঁশ নেই। সুমিষ্ট এবং সুগন্ধযুক্ত এই আমটি রাজশাহী অঞ্চলের পুঠিয়া থানা এলাকার বালিয়াঘাটি, রঘুরামপুর, খটীপাড়া, মাড়িয়া, হাটশিবপুর এলাকায় বেশি জন্মে। দুর্গাপুর, চারঘাট ও পবা এলাকাতেও জন্মে থাকে। বানেশ্বর এবং রাজশাহী শহরের আমের বাজার ৫ থেকে ১০ দিন মাত্র পাওয়া যায়। বানেশ্বরে বেশি পরিমাণে পাওয়া যায়। আমটির জনপ্রিয়তা দিন দিন বাড়ছে। চাহিদা প্রচুর কিন্তু যোগান অনেক কম। এই গাছের আকার বড়। প্রতি বছর ফল আসে। পূর্ণবয়সী একেক গাছে ১২ থেকে ১৫ মণ আম পাওয়া যায়। ঝড় খুব বেশি ক্ষতি করতে পারে না। ২০১০ সালে বানেশ্বর বাজারে (হাটে) ভাদুরিয়া আমটি বিক্রি হয়েছে ১২০০ থেকে ১৫০০ টাকা মণ দরে।

 

 

 

আরও কিছু ছবিঃ

Leave your comments

0
terms and condition.
  • No comments found