x 
Empty Product

বাগানের আগাম যত্ন

User Rating:  / 1
PoorBest 

বর্তমানে বাংলাদেশে যতগুলো ফল বাণিজ্যিকভাবে চাষ হচ্ছে তার মধ্যে আম অন্যতম। এদেশের মানুষ আম বেশি পছন্দ করে। বর্তমানে যে পরিমাণ জমিতে আমবাগান আছে তার তুলনায় ফলন অত্যন্ত কম। অর্থাৎ

বর্তমানে বাংলাদেশে যতগুলো ফল বাণিজ্যিকভাবে চাষ হচ্ছে তার মধ্যে আম অন্যতম। এদেশের মানুষ আম বেশি পছন্দ করে। বর্তমানে যে পরিমাণ জমিতে আমবাগান আছে তার তুলনায় ফলন অত্যন্ত কম। অর্থাৎ

আমাদের দেশে প্রতি একক জমিতে গড় ফলন কম। এছাড়াও দেশের বিভিন্ন স্থানে ফলনের ব্যাপক তারতম্য দেখা যায়। যেমন- চাঁপাই নবাবগঞ্জ, রাজশাহীতে আমের যে ফলন অন্য এলাকায় তার চেয়ে অনেক কম। উৎপাদনের বিভিন্ন পর্যায়ে একটু যত্নবান হলে আমের ফলন কয়েকগুন বাড়ানো সম্ভব। যেমন- আম গাছ থেকে আম সংগ্রহের পর পরবর্তী ফুল আসা পর্যন্ত কোনো পরিচর্যা করা হয় না। এটি মোটেই কাম্য নয়। আম গাছ হতে আম সংগ্রহ করার পর রোগাক্রান্ত বা মরা ডাল পালা একটু ভাল অংশসহ কেটে ফেলতে হবে। ডালপালা এমনভাবে ছাঁটাই করতে হবে যেন গাছের ভেতরের অংশে সর্বাধিক পরিমাণ সূর্যালোক পেঁৗছাতে পারে। গাছের ভেতরমুখী ডালে সাধারণত ফুল-ফল হয় না, তাই এ ধরনের ডাল কেটে ফেলতে হবে। ফলে বর্ষাকালে কর্তিতঅংশগুলো হতে নতুন কুশি জন্মাবে এবং পরের বছরে এই নতুন কুশিগুলোতে ফুল আসবে। এরপর যে বিষয়টির উপর গুরুত্ব দিতে হবে তা হল আম বাগানে সার প্রয়োগ। আম বাগান হতে প্রতি বছর ভাল ফলন পাওয়ার জন্য সময়মত সুষম সার প্রয়োগ করতে হবে। প্রতিটি গাছে প্রতি বছর কি পরিমাণ সার দিতে হবে তা নির্ভর করে মাটিতে বিদ্যমান সহজলভ্য পুষ্টি উপাদানের উপর। সব ধরনের মাটিতে সারের চাহিদা সমান নয়। সুতরাং মাটির অবস্থাভেদে সারের চাহিদা কম-বেশি হতে পারে। গাছের বয়স বৃদ্ধির সাথে সাথে সারের চাহিদাও বাড়তে থাকে। যেমন- গোবর: রোপণের ১ বছর পর ২০ কেজি, রোপণের ২ বছর পর ২৫ কেজি। প্রতি বছর বাড়াতে হবে ৫ কেজি করে। ২০ বছরের উধের্্ব ১২৫ কেজি সার প্রয়োগ করতে হবে। ইউরিয়া: রোপণের ১ বছর পর ২৫০ গ্রাম, রোপণের ২ বছর পর ৩৭৫ গ্রাম। প্রতি বছর বাড়াতে হবে ১২৫ গ্রাম করে। ২০ বছরের উধের্্ব ২৭৫০ গ্রাম। টিএসপি: রোপণের ১ বছর পর ১০০ গ্রাম, রোপণের ২ বছর পর ২০০ গ্রাম। প্রতি বছর বাড়াতে হবে ১০০ গ্রাম করে। ২০ বছরের উধের্্ব ২১৫০ গ্রাম। এমপি: রোপণের ১ বছর পর ১০০ গ্রাম, রোপণের ২ বছর পর ২০০ গ্রাম। প্রতি বছর বাড়াতে হবে ১০০ গ্রাম করে। ২০ বছরের উধের্্ব ২১০০ গ্রাম। জিপসাম: রোপণের ১ বছর পর ১০০ গ্রাম, রোপণের ২ বছর পর ১৭৫ গ্রাম। প্রতি বছর বাড়াতে হবে ৭৫ গ্রাম করে। ২০ বছরের উধের্্ব ১৬০০ গ্রাম। জিংক সালফেট: রোপণের ১ বছর পর ১০ গ্রাম, রোপণের ২ বছর পর ১৫ গ্রাম। প্রতি বছর বাড়াতে হবে ৫ গ্রাম করে। ২০ বছরের উধের্্ব ১১০ গ্রাম। বোরিক এসিড: রোপণের ১ বছর পর ৫ গ্রাম, রোপণের ২ বছর পর ৭ গ্রাম। প্রতি বছর বাড়াতে হবে ২ গ্রাম করে। ২০ বছরের উধের্্ব ৫০ গ্রাম। সার ২ কিস্তিতে প্রয়োগ করা ভাল। প্রথম অর্ধেক বৈশাখ-জ্যৈষ্ঠ মাসে অর্থাৎ বর্ষার আগে এবং বাকি

অএধট্টক আশিঙ্কন মাএস অ্বট্টাৎ বষট্টার পএর পণ্ঠএয়াগ করএত হএব।

ফলন্ত গাছে গুড়ি থেকে ২-৩ মিটার দূরত্বে ৩০ সেন্টিমিটার প্রশস্ত ও ১৫-২০ সেন্টিমিটার গভীর করে চক্রাকার নালা কেটে নালার ভেতর রাসায়নিক ও জৈব সার মাটির সাথে ভালভাবে মিশিয়ে দিতে হবে। অথবা দুপুরবেলা যতটুকু জায়গায় গাছের ছায়া পড়ে ততটুকু জায়গায় সার ছিটিয়ে কোঁদাল দিয়ে মাটি কুপিয়ে ভালভাবে মিশিয়ে দিতে হবে। সাধারণত আম গাছে ফল আসার পর গাছগুলো দুর্বল হয়ে থাকে। ফলে গাছে সার দেওয়ার পর বর্ষা আরম্ভ হলে গাছ তার প্রয়োজনীয় খাদ্য মাটি থেকে নিতে থাকে। এতে গাছে নতুন পাতা বের হয়। নতুন ডগার বয়স ৫-৬ মাস হলে তা ফুল উৎপাদনের উপযোগী হয়। কিন্তু বর্তমানে দেখা যায় অনেকেই আম বাগানে প্রতি বছর সার প্রয়োগ করেন না অথবা দেরীতে সার প্রয়োগ করে থাকেন। ফলে তারা আশানুরূপ ফলন পান না।

এখানে একটি কথা মনে রাখা দরকার, জুন-আগস্ট মাসে আম গাছে যত বেশি নতুন পাতা বের হবে ততই ভাল কারণ পরবর্তী বছরে এই সমস্ত ডগায় ফুল আসার সম্ভাবনা বেশি থাকে। ফলে আমের ফলন বৃদ্ধি পাবে।

সার প্রয়োগের পর যে বিষয়টির উপর গুরুত্ব দিতে হবে তা হল আম বাগানে খরা মৌসুমে ঘন ঘন সেচ দিতে হবে। তবে মাটিতে পর্যাপ্ত রস থাকলে সেচের প্রয়োজন পড়ে না। গবেষণা করে দেখা গেছে আম গাছে পরিবর্তিত বেসিন পদ্ধতিতে অর্থাৎ গাছের গোড়ার চারদিকে ১ মিটার জায়গা সামান্য উঁচু রেখে দুপুরবেলা যতটুকু জায়গায় গাছের ছায়া পড়ে ততটুকু জায়গায় একটি থালার মত করে বেসিন তৈরি করে সেচ দিলে পানির পরিমাণ কম লাগে এবং গাছ বেশির ভাগ পানি গ্রহণ করতে পারে। তবে আম গাছে ফুল আসার একমাস আগে সেচ না দেওয়া ভাল। কারণ কোনো কোনো সময় দেখা গেছে, এই সময় সেচ দিলে গাছে নতুন পাতা বের হয়ে মুকুলের সংখ্যা কমে যায় এবং ফলন কম হয়। আম বাগানে জৈব পদার্থের ঘাটতি থাকলে ধৈঞ্চার চাষ করা যেতে পারে ফলে বাগানে জৈব পদার্থসহ অন্যান্য সার যোগ হবে এবং মাটির উৎপাদন ক্ষমতাও বৃদ্ধি পাবে।

আমবাগানে শতভাগ মুকুল কখনো কাঙ্খিত নয়। যদি কোনো গাছে শতভাগ মুকুল আসে তবে ফলন বেশি হবে এই ধারণাটি ঠিক নয়। এই জন্য কোনো গাছ শতভাগ মুকুলায়িত হলে আম গাছের চারদিক হতে ৫০% ভাগ মুকুল ফুল ফোটার আগে ভেঙে দিতে হবে। ফলে ভাঙা অংশ হতে নতুন কুশি জন্মাবে এবং পরবর্তী বছরে ওই সমস্ত ডগায় ফুল আসবে। এভাবে একটি গাছ থেকে প্রতি বছর আমের ফলন বেশি আসবে। আগামী বছর আমের ফলন নির্ভর করে আম সংগ্রহ করার পরবর্তী সময়ের পরিচর্যার উপর। আম সংগ্রহ করার পর উপরোক্ত বিষয়সমূহের প্রতি নজর দিলে অবশ্যই প্রতি বছর আশানুরূপ ফলন পাওয়া যাবে।

Leave your comments

0
terms and condition.
  • No comments found