x 
Empty Product

Articles

আগষ্ট

User Rating:  / 0
PoorBest 

আম মহান আল্রাহ তায়ালার সৃষ্ট ফলগুলোর মধ্যে অন্যতম। প্রকৃত যত্ন আর সময়মত পরিচর্যা আমের ফলন অনেক গুন বাড়িয়ে দেয়।

আসুন দেখি একজন আম চাষী হিসেবে এই মাসে আপনার করনীয়:


* আম পাড়া শেষ হলে বাগানে চাষ দিয়ে সারের ডোজ অনুযায়ী জৈব অজৈব সার প্রয়োগ করতে হবে। ( প্রথমবারের জন্য)


* বি:দ্র:- ফলন্ত যে সব গাছে এবারে ফল ধরেনি সে সব গাছ নাইট্রোজেন বাদ দিয়ে অন্যান্য সার প্রয়োগ করতে হবে। এবং ফলন্ত গাছে নাইট্রোজেন সারের পুরো ডোজ এখনই প্রয়োগ করা উচিত। তবে ফসপেট ও পটাশ সার দুই বারে প্রয়োগ করা উত্তম।


* গাছের মরা শুকনা ডাল ছাটাই ও আলো বাতাস কান্ডে প্রবেশ করার জন্য ভেতরের ডাল পালা ছাঁটাই করে ১ গ্রাম হারে কার্বেন্ডাজিম (ব্যভিষ্টিন) / ব্লাইটক্স) স্প্রে করতে হবে। এতে রোগ প্রতিরোধ হয় এবং হপারের প্রাদুর্ভাব ৩০-৪০ শতাংশ কমে যায়।


* এ্যাপসিলা কীটের জন্য ডায়মিথয়েট (রগর)/ টাফগর ১ এমএল হারে স্প্রে করা যায়।


* গল মাছি দমনে ১৫ দিন অন্তর অন্তর ডাইমেক্রন ১০০ ডব্লিউ এস.এস, প্রতি লিটার পানিতে ১ এমএল হারে স্প্রে করতে হবে।

মাসের মধ্যবর্তী সময়ে সটগল সাইলিড পোকা দ্বারা আক্রান্ত পাতাসমূহের মধ্যশিরায় দু‘টি লাইনে পোকার ডিম  পাড়ায় ক্ষতচিহ্নসমূহ এবং ‘এ’ চিহ্নসমূহের ভিতর থেকে মধুসহ মোমের গুড়ার মত ভ্রুনাবস্থায় পোকার নিফ কর্তৃক নির্গত মল দেখতে পাওয়া গেলে ঐ আম গাছে ডাইমিথয়েট (টাফগর / রগর / রক্সিয়ন) ৪০ ইসি অথবা মনোক্রোটোফস (নূভাক্রন) ৪০ ডব্লিউ এস.সি প্রতি লিটার পানিতে ২ এমএল হারে মিশিয়ে ১৫ দিন অন্তর অন্তর মোট ৩ বার আক্রান্ত গাছে স্প্রে করতে হবে।

 

Leave your comments

0
terms and condition.
  • No comments found