x 
Empty Product
Monday, 19 August 2013 15:05

আম মৌসুমে ব্যবসায়ীরা লাভবান

Written by 
Rate this item
(0 votes)

এই মৌসুমে নাটোর জেলার বাগাতিপাড়া উপজেলার আম ব্যবসায়ী, আমের আড়ৎদার এবং আম চাষীরা লাভবান হচ্ছেন। নাটোর শহর থেকে ১৫ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থিত বাগাতিপাড়া উপজেলার ব্যবসায়ীক প্রাণকেন্দ্র তমালতলাতে অবস্থিত এই বাজার। প্রতি শুক্র ও সোমবার হাট থাকলেও এখন প্রতিদিনই হাট বসছে। উপজেলাতে প্রচুর পরিমাণে আম, লিচু, কাঠালসহ অন্যান্য ফলের বাগান থাকলেও শুধু এই মৌসুমকে ঘিরে এই বাজারে ২৫টির মত আমের আড়ৎ রয়েছে। ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা চুক্তিভিত্তিক বিভিন্ন এলাকায় আমের বাগান ক্রয় করে। সেই আম ভেঙ্গে আড়তে নিয়ে আসে। অনেক বাগান মালিক রয়েছে যারা সরাসরি আড়তে আম বিক্রি করে, তাতে তারা লাভও পাচ্ছে বেশি। ঢাকা থেকে অনেক পাইকারি ব্যবসায়ী আড়তের মাধ্যমে আমগুলো ক্রয় করে। পাইকার ব্যবসায়ী আব্দুল জলিল, হাওলার, শিপন জানান, এখানে সবরকম আম দেখে কেনার সুযোগ রয়েছে। তাই আমরা এই আম ঢাকা, সিলেট, ময়মনসিংহ, বরিশাল, ফেনী, খুলনাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে পাঠাই। দিনে প্রায় দুই হাজার টনের মত আম বেচা-কেনা হয় এখানে। তাতে প্রায় ৮০লক্ষ থেকে ১ কোটি টাকা লেনদেন হয়। এই আমগুলো রাজশাহীর বাঘা, আড়ানি, পুটিয়া, তাহেরপুর, নওগাঁর আত্রাই, রানীনগর, জয়পুর হাট, আক্কেলপুর, দিনাজপুরসহ দূর দূরান্ত থেকে আসে। আড়ৎ হওয়ায় এলাকার অনেক শ্রমিকও কাজের সুযোগ পেয়েছে। একজন শ্রমিক কমপক্ষে ছয় থেকে নয়শত টাকা মজুরি পায়। এখানে যে সমস্ত আম আসে তার মধ্যে আম হিসাবে খেরসা, কালুয়া, রানীপছন্দ, লকনা, কৃঞ্চকলী, আম্রপালী, ফজলি, আশ্বিনা, কৃষানভোগ, মোহনভোগ, গোপালভোগ, কুয়াপাহাড়ী, ফোনিয়া, মল্লিকা উল্লেখ্য। আড়ৎদার, পাইকার ব্যবসায়ী, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী, বাগান মালিক সকলে বললেন এলাকার ব্যবসায়ীক পরিবেশ ভালো কিন্তু টাকা লেনদেন করার জন্য এখানে ব্যাংক নেই। তাই এলাকাবাসী ব্যাংক স্থাপনের দাবি জানিয়েছেন।

Read 1084 times Last modified on Sunday, 01 December 2013 10:22

Leave a comment

Make sure you enter the (*) required information where indicated. HTML code is not allowed.