x 
Empty Product
Wednesday, 14 June 2017 08:37

রাজশাহী অঞ্চলে ইটভাটার সৃষ্ট দূষণে বাগানগুলোতে পচে যাচ্ছে কাঁচা আম

Written by 
Rate this item
(0 votes)
চারঘাট (রাজশাহী) সংবাদদাতা : রাজশাহীর চারঘাট, বাঘা, পুঠিয়া, বাগমারা, গুগাদাগাড়ী এলাকায় ইটভাটার আশপাশের আমচাষিরা লোকসানের মুখে পড়েছেন। ইটভাটার সৃষ্ট দূষণে আমের গায়ে কালো দাগ দেখা দিয়েছে। এতে ভালো আমের চেয়ে অর্ধেক দামে বাজারে আম বিক্রি করতে হচ্ছে। ফলে যারা বাগান নিয়েছেন তাদের পড়তে হচ্ছে লোকসানের মুখে। 

রাজশাহীর চারঘাট, বাঘা, পুঠিয়া, বাগমারা ও গোদাগাড়ীতে ছোট-বড় সব মিলিয়ে ৭০ থেকে ৮০টি ইটভাটা আছে। ইটভাটাগুলোর বেশিরভাগ আমের বাগান ও ফসলি জমির আশপাশে গড়ে উঠেছে। ইটভাটার পাশে যেসব আমের বাগান অবস্থিত সেসব বাগানের মালিক ও বাগান ক্রেতারা পড়েছেন বিপদে। অন্য বাগানের তুলনায় আমের উৎপাদন কম। সেই সঙ্গে আমের গায়ে দেখা দিয়েছে বড় বড় কালো দাগ। এতে ওই সব বাগানের মালিকরা বাজারে আম বিক্রি করতে পারছেন না। চারঘাট উপজেলার হলিদাগাছি এলাকার বাবর আলি বানেশ্বর হাটে চার মণ আম দুটি টুকরিতে করে বিক্রির উদ্দেশ্যে নিয়ে এসেছিলেন। তার আমগুলোতে কালো দাগ ছিল। বাজারে আসা ভালো আম ভালো দামে বিক্রি হলেও তার দুই টুকরি আম ৫০০ টাকা মণ দরে বিক্রি করতে হয়েছে। বাবর জানান, ভালো আম হলে ২ হাজার ২০০ টাকা থেকে ৩ হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রি করা যেত। কিন্তু আমের গায়ে দাগ থাকায় মাত্র মাত্র ৫০০ টাকা মণ দরে বিক্রি করতে হচ্ছে। তার বাগানে ২২টি গাছ আছে। সব গাছের আমগুলোতে কালো দাগ পড়েছে। রাজশাহী ফল গবেষণা ইনস্টিটিউটের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. আব্দুল আলিম জানান, ইটভাটা থেকে নির্গত ছাই আশপাশের গাছপালা ও ফসলের মারাত্মক ক্ষতি করে। ছাই ও বস্তুকণা গাছের পাতার পত্ররন্ধন বন্ধ কওে দেয় এবং উদ্ভিদের সালোকসংশে¬ষণ ও শোষণ প্রক্রিয়াকে মারাত্মকভাবে ব্যাহত করে। কার্বন-ডাই-অক্সাইড ও সালফার-ডাই-অক্সাইড মিশ্রিত ছাই ফসলের ফুলের রেণু, যথা ধান, আম, কাঁঠাল, লিচু, শিম, কুমড়া, সরিষাসহ নানাবিধ ফসলের ফুলের রেণুকে বিনষ্ট করে এবং এই দূষণের কারণে ফসলের উৎপাদন মারাত্মকভাবে কমে যায়। দেখা যায় যে, বায়ু দূষণের জন্য ইটভাটার আশপাশের বৃক্ষের ফুল ঝরে যায় এবং পরাগায়নে বিঘœতার জন্য ফলবতি গাছের ফল ধারণক্ষমতা হ্রাস পায়। তাছাড়া আম, কাঁঠাল, লিচু, শিম, লাউ-কুমড়া ইত্যাদি ফলের গায়ে কালো দাগ পড়ে। অবৈজ্ঞানিক ও অপরিকল্পিতভাবে গড়ে ওঠা ইটভাটায় চিমনির উচ্চতা কম থাকায় পরিবেশ দূষণের মাত্রা বৃদ্ধি পায়। ইট পোড়ানো (নিয়ন্ত্রণ) সংশোধন আইন-২০০১-এর ৩(চ)৫ ধারা অনুযায়ী, আবাদি জমি ও ফলের বাগান থেকে তিন কিলোমিটার এলাকার ভিতওে কোনো ইটভাটা স্থাপন করা নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

http://www.dailysangram.com/post/284818

Read 1528 times

Leave a comment

Make sure you enter the (*) required information where indicated. HTML code is not allowed.