x 
Empty Product
Thursday, 26 March 2020 08:18

আম গাছের পাতা থেকে ঝড়ছে মিষ্টি পানি !

Written by 
Rate this item
(0 votes)

সম্প্রতি করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে আদা থানকুনি পাতা নিয়ে গুজব ছড়িয়ে পড়ে দেশব্যাপী। যা নিয়ে তুলকালাম কান্ড ঘটে যায় সারা দেশে। সেই গুজব ঘুচতে না ঘুচতে নতুন এক আলোচনা সামনে এসেছে। তা হলো আম গাছের পাতা দিয়ে মিষ্টি মধু বা মিষ্টি পানি ঝড়ছে।

 

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর থেকে নতুন এই ঘটনা নিয়ে বেশ সোরগোল বেধেছে। কোথা থেকে আসছে এই মিষ্টি পানি বা কেন এবং কিভাবেই বা ঝড়ছে তা নিয়ে প্রশ্নের দানা বেদেছে জনমনে। অনেক আবার ঘটনাটিকে অলৌকিক বলেও আখ্যা দিয়েছেন।

 

বরিশাল নগরীর আগরপুর রোডের বাসিন্দা ও চায়ের দোকানী পুন্না বলেন, ‘লোক মুখে শুনেছি আম গাছের পাতা থেকে মিষ্টি মধু ঝড়ছে। শোনার পরে আমি নিজেও প্রত্যক্ষ করেছি। দেখেছি আম গাছের পাতার পাশ দিয়ে পানি জাতিয়ে কিছু একটা গড়িয়ে পড়ছে।

পুন্না বলেন, ‘অনেক কৌতুহলবসত আম গাছের পাতা থেকে ছড়া ওই পানি খেয়েও দেখেছি। আসলেই খুব মিষ্টি লেগেছে। তাই এই ঘটনাটি আর বিশ্বাস না করার আর উপায় ছিল না। তবে কেন এবং কিভাবে পাতা থেকে মিষ্টি পানি ঝড়ল সেটা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দেয় ওই খুদে ব্যবসায়ীর মণে।

 

লোক মুখে আম গাছ থেকে মিষ্টি মধু ঝড়ার গল্প শুনে আটকে রাখা গেল না নিজেকে। অনেক কৌতুহল নিয়েই ঘটনা প্রত্যক্ষ করতে ছুটে যান বিএসএল নিউজ এর সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদক। ঘটনার সত্যতাও ধরা পড়ে তার চোখে।

 

দেখা যায়, ‘আম গাছের কিছু পাতা থেকে পানি ঝড়ছে। দুর থেকে দেখে মধুর মতই মনে হয়েছে। এক একটি পাতার চার পাশ দিয়ে পানিগুলো গড়িয়ে গড়িয়ে পড়ছে। তবে গাছের সকল পাতায় এক দৃশ্য মেলেনি। বেশিরভাগ পাতাই ভাবাবিক দেখা গেছে।

এই দৃশ্যটির সত্যতা জাচাইয়ে বরিশাল নগরীর বিভিন্ন এলাকায় আম গাছের পাতা খুঁজতে গিয়ে একই দৃশ্য দেখা গেছে। তবে এর সুনির্দিষ্ট কারণ জানা যায়নি। বিষয়টি নিয়ে বরিশালে কর্মরত কয়েকজন কৃষি কর্মকর্তাকে ফোন করা হলেও তারা রিসিভ করেননি। যে কারণে আপাতত আম পাতা থেকে মিষ্টি পানি ঝড়ার রহস্য অজানাই থেকে যায়।

 

তবে ডিজিটাল তথ্য প্রযুক্তি ঘাটতে গিয়ে দেখা যায়। ২০১৭ সালের এপ্রিল মাসে ঈশ্বদীতে এমন একটি ঘটনা ঘটে। যা নিয়ে তখনকার সময় বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদও প্রকাশ হয়েছে।

 

একটি অনলাইন নিউজ পোর্টালে প্রচার হওয়া সংবাদে ঈশ্বরদী উপজেলার তৎকালিন কৃষি কর্মকর্তা খুরশিদ আলমের বরাত দিয়ে লেখা হয়েছে, ‘তাপমাত্রা বেড়ে যাওয়ায় আম গাছে শোষক পোকা নামে এক ধরনের ক্ষুদ্র ক্ষতিকারক পোকার আক্রমণের কারণে এটা হতে পারে। আম উৎপাদনের জন্য এটি উদ্বেগজনক।

 

নিউজটিতে ঈশ্বরদী আঞ্চলিক কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের তৎকালিন প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা আলতাব হোসেনের বরাত দিয়ে লেখা হয়েছে, ‘আম গাছের জন্য এটি একটি নতুন সমস্যা মনে হচ্ছে। গাছে শোষক পোকার উপদ্রব বেড়ে যাওয়ায় এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে।

এছাড়াও চাঁপাইনবাবগঞ্জে অবস্থিত আঞ্চলিক উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্রের (আম গবেষণা কেন্দ্র) তৎকালিন ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা জমির উদ্দিনের বরাত দিয়ে লেখা হয়েছে, ‘সমস্যাটি আম উৎপাদনেরজন্য উদ্বেগজনক। তবে তাৎক্ষনিকভাবে তিনিও এর সঠিক উত্তর দিতে পারেননি।

তবে এটি পোকার আক্রমনে হতে পারে বলে তিনি ওই পত্রিকাটিকে জানিয়েছেন, এসব পোকা গাছের কচি পাতা ও ডগার রস খেয়ে ফেলে। সাধারণত ফেব্রুয়ারি ও মার্চ মাসে ওই পোকা বংশবৃদ্ধি করে। পোকার দেহ থেকে নিসৃত রস আঠালো ও মধুর মতো মিষ্টি মনে হয়। রসের কারণে আম ও গাছের পাতায় বিভিন্ন ছত্রাকজনিত রোগ তৈরির অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি হয়।

 

এতে গাছে বিভিন্ন ধরনের রোগ দেখা দেয়। এমনটি হলে গাছের আম কালো হয়ে আস্তে আস্তে তা শুকিয়ে ঝরে পড়ে। এ পোকার আক্রমণ গুটি বা ছোট আমের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ। পোকা আক্রমণের সময়কে শুটি মৌল বলা হয়। বড় আমগাছে এ পোকার আক্রমণ কম হয়। ছোট গাছে প্রভাব পড়ে বেশি।

এই নিউজটির মুল লিখা আমাদের না। আমচাষী ভাইদের সুবিধার্তে এটি কপি করে আমাদের এখানে পোস্ট করা হয়েছে। এই নিউজটির সকল ক্রেডিট: https://bslnews24.com/

Read 57 times

Leave a comment

Make sure you enter the (*) required information where indicated. HTML code is not allowed.