x 
Empty Product
Saturday, 12 May 2018 01:07

​রাজশাহীতে আম পাড়া যাবে ২০ মে থেকে

Written by 
Rate this item
(1 Vote)

সিঁদুরে আমের এ ছবিটি রাজশাহী গোদাগাড়ী কলেজ এলাকা থেকে তোলা -যাযাদিআগামী ২০ মের আগে বাজারজাতের জন্য রাজশাহীতে গাছ থেকে আম নামানো যাবে না। আমচাষি আর ব্যবসায়ীদের সঙ্গে মতবিনিময় শেষে আমপাড়ার এই সময় নির্ধারণ করা হয়।
বুধবার সকালে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলনকক্ষে এ মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক এসএম আবদুল কাদের। সভায় সিদ্ধান্ত্ম অনুযায়ী আগামী ২০ মের আগে গাছ থেকে নামানো যাবে না গোপালভোগ জাতের আম। হিমসাগর, খিরসাপাতী ও লক্ষণভোগ নামানো যাবে ১ জুনের পর। আর ল্যাংড়া নামানো যাবে জুনের ৬ তারিখ থেকে। এ ছাড়া আমরম্নপালি ও ফজলি ১৬ জুন এবং আশ্বিনা জাতের আম ১ জুলাইয়ের আগে চাষিরা গাছ থেকে পাড়তে পারবেন না।

জেলা প্রশাসক এসএম আবদুল কাদের বলেন, বিভিন্ন জাতের আম নামানোর জন্য সাম্ভাব্য সময় ঠিক করে কৃষি মন্ত্রণালয় থেকে চিঠি দেয়া হয়েছে। তবে চিঠির ঠিক করে দেয়া সময় নয়, স্থানীয় চাষি ও ব্যবসায়ীদের মতামত নিয়েই আমপাড়ার সময় ঠিক করা হয়েছে। জেলা প্রশাসক বলেন, রাজশাহীর আমে কখনও ফরমালিন মেশানো হয় না। কৃত্রিমভাবেও আম পাকানো হয় না। কিন্তু যখন বাজারে অনেক আগে কিংবা পরে আম পাওয়া যায়, তখন অনেকেই মনে করেন যে আমে কেমিক্যাল দেয়া আছে। ক্রেতাদের এই ভীতি দূর করতেই আমপাড়ার একটা নির্দিষ্ট সময় ঠিক করে নেয়া হলো। এতে কেউ মনে করবেন না যে, এই আম এখন গাছে থাকার কথা নয়। এই সিদ্ধান্ত্ম নেয়ার সময় সবার আগে চাষিদের স্বার্থরক্ষা করা হয়েছে।
তিনি আরও বলেন, বেঁধে দেয়া সময় অনুযায়ী আম নামানো হচ্ছে কিনা তা মনিটরিং করা হবে। এ জন্য প্রতিটি উপজেলার নির্বাহী অফিসার, উপজেলা চেয়ারম্যান ও কৃষি কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে মনিটরিং কমিটি গঠন করা হচ্ছে। নির্দিষ্ট সময়ের আগে আমপাড়া হলে এই কমিটি ব্যবস্থা নেবে। আর চাষি ও ব্যবসায়ীদের সব সুযোগ-সুবিধা এবং নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে প্রশাসন কাজ করবে।
জেলা প্রশাসক বলেন, জেলার সবচেয়ে বড় আমের হাট পুঠিয়া উপজেলার বানেশ্বর বাজারে অস্থায়ী অফিস খুলবেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার। বানেশ্বরে থাকা বিভিন্ন ব্যাংকের শাখাগুলো শনিবারও খোলা থাকবে। এ ছাড়া জেলা প্রশাসন থেকে তিনজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দিনে আট ঘণ্টা করে ২৪ ঘণ্টা সেখানে দায়িত্ব পালন করবেন। আর আম পরিবহনে যেন কোনো সমস্যা না হয় সে বিষয়টি নিশ্চিত করবে পুলিশ।
সভায় বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সুব্রত পাল, জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবদুর রাজ্জাক খান, রাজশাহী ফল গবেষণা কেন্দ্রের বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা জিএম মোরশেদুল বারী, জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক দেব দুলাল ঢালি, বিএসটিআইর রাজশাহীর উপপরিচালক খাইরম্নল ইসলাম, বাঘার আমচাষি জিলস্নুর রহমান ও আম ব্যবসায়ী আজমল হোসেন প্রমুখ।

Read 900 times Last modified on Monday, 31 December 2018 09:12

1 comment

Leave a comment

Make sure you enter the (*) required information where indicated. HTML code is not allowed.